শামসুন্নাহার নিজামী: Shamsunnahar Nezami Books


 শামসুন্নাহার নিজামী কর্তৃক রচিত ইসলামিক pdf বই ডাউনলোড করতে নিচে নামের উপর ক্লিক করুন।
৩। নারী নির্যাতনের কারণ ও প্রতিকার
৪। নারী মুক্তি আন্দোলন
৫। পর্দা একটি বাস্তব প্রয়োজন

এসো বই পড়ি-দেশ গড়ি
একজন সৃষ্টিশীল মানুষ পৃথিবীতে বইয়ের বিকল্প কিছুই চিন্তা করতে পারেন না। সমাজ বদলাতে হলে বই পড়ার বিকল্প নেই। বই মানুষের জীবন সঙ্গী। বই অবসরের প্রিয় বন্ধু। বই পাঠ মানুষকে সত্য পথে চলতে, মানবতার কল্যাণে অনুপ্রাণিত করে। বই সুখের সময় মানুষের পাশে থাকে। দুঃখের সময় মনোবল বাড়াতে সাহায্য করে। যে লোকটি বইকে নিত্যদিনের সঙ্গী বানিয়েছে, সেই লোকটি সমাজের অন্য ১০ জন মানুষ চেয়ে ভিন্ন। তার মন-মনন আলাদা। চিন্তাচেতনা ভিন্ন। সহিষ্ণুতা আর বিশ্বাসের ধরনটাও আলাদা। ইচ্ছা করলেই বিবেক বিক্রি করে তিনি নষ্ট পথে ধাবিত হতে পারেন না। এক কথায় যিনি জ্ঞানী তিনি কখনই সমাজ বিপর্যয়ী কাজে অংশ নিতে পারেন না। একজন পাঠক মাত্রই জ্ঞানের সাধক। 
আদিকাল থেকে তাই বইয়ের প্রতি এত কদর, এত ভালোবাসা। এক সময় লাইব্রেরিগুলোতে পাঠকের উপচেপড়া ভিড় লেগে থাকত। যদিও এখন অধিকাংশ লাইব্রেরি পাঠকশূন্য। প্রযুক্তির কারণে বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ সাইটের মোহ আর অনলাইনে পাঠ সামগ্রীর প্রাচুর্যে পাঠক এখন কিছুটা বইবিমুখ। কিন্তু পাঠক হ্রাসের ভিন্ন কারণও রয়েছে। আর্থিক দৈন্যতা, মেধার যথার্থই মূল্যায়ন না করা, জ্ঞানী-গুণীর প্রতি শ্রদ্ধা না করা। মানুষের বদ্ধমূল ধারণা পুঁজিবাদী এই সমাজ ব্যবস্থায় বই পড়ে কী হবে? অধিকাংশই জ্ঞান অর্জনের চেয়ে অর্থ রোজগারে থাকেন অভ্যস্ত। তাই বই পড়া থেকে অনেকে দূরে সরে যাচ্ছেন। পুঁজিবাদী এই সমাজ ব্যবস্থায় অনেকে শিল্পপতি, আঙ্গুল ফুলে হঠাৎ ধনী হয়েছেন। তাদের ধারণা বই পড়ে কী হবে? পৃথিবী তো টাকার গোলাম। টাকার কাছে হেরে যাচ্ছে মেধা-মনন আর সততা। টাকা হলে এই যুগে হাতের কাছে সব মেলে।
সমাজ অনেকটা অন্ধকারে ডুবে আছে। এটা স্থায়ী হতে পারে না, একদিন আলোয় উদ্ভাসিত হবেই হবে। বই পড়ে মানুষ জ্ঞানী হয়, তার মধ্যে প্রকৃত মনুষ্য গুণাবলী তৈরি হয়। তাই আবেগ নয়, প্রচলিত সামাজিক অবস্থান থেকে আপনি যতই বিমুখ হন না কেন প্রতিদিন আপনাকে কিছু সময়ের জন্য হলেও বই পড়তে হবে। এ ব্যাপারে প্রতিদিন কিছু সময় বরাদ্দ করতে হবে। মনে রাখবেন, একটি সৃষ্টিশীল পৃথিবী বিনির্মাণে বইয়ের বিকল্প কিছুই নেই। 
একজন আরব প-িতের উদ্ধৃতি, ‘ধনীরা বলে, পয়সা কামানো দুনিয়াতে সবচেয়ে কঠিন কর্ম। কিন্তু জ্ঞানীরা বলেন, না জ্ঞানার্জন সবচেয়ে শক্ত কাজ। এখন প্রশ্ন কার দাবিটা ঠিক, ধনীর না জ্ঞানীর? আমি নিজে জ্ঞানের সন্ধানে ফিরি, কাজেই আমার পক্ষে নিরপেক্ষ হওয়া কঠিন। তবে একটা জিনিস আমি লক্ষ্য করেছি, সেইটে আমি বিচক্ষণ জনের চক্ষুগোচর করতে চাই। ধনীর মেহনতের ফল হলো টাকা। সে ফল যদি কেউ জ্ঞানীর হাতে তুলে দেয়, তবে তিনি সেটা পরামানন্দে কাজে লাগান এবং শুধু তাই নয়, অধিকাংশ সময়ে দেখা যায়, জ্ঞানীরা পয়সা পেলে খরচ করতে পারেন ধনীদের চেয়ে অনেক ভালো পথে, উত্তম পদ্ধতিতে। পক্ষান্তরে, জ্ঞানচর্চার ফল সঞ্চিত থাকে পুস্তকরাজিতে এবং সে ফল ধনীদের হাতে গায়ে পড়ে তুলে ধরলেও তারা তার ব্যবহার করতে জানে না।বই পড়তে পারে না’। অতএব প্রমাণ হলো জ্ঞানার্জন ধনার্জনের চেয়ে মহত্তর। আসলে ধন সাময়িক মাত্র। নশ্বর এই পৃথিবীতে প্রকৃত জ্ঞানী-গুণীরা চিরদিন অমর হয়ে থাকবেন এবং আছেন।
তাই আসুন প্রতিদিন একটি করে সৃজনশীল বই পড়ি। ফিরে যাই জ্ঞানের ভুবনে। গড়ে তুলি জ্ঞানভিত্তিক একটি সমাজ ব্যবস্থা। সবাই মিলে পাড়ায় পাড়ায় একটি করে লাইব্রেরি গড়ে তুলি। পাঠ্যাভাসে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করি। জ্ঞানের মশাল প্রজ্বলিত করার দৃঢ় প্রত্যয়ে-‘এসো বই পড়ি-দেশ গড়ি’। এই স্লোগানকে সামনে রেখে বইকে আমৃত্যু সাথী করে রাখি। প্রিয়জনকে উপহার হিসেবে একটি বই প্রদান করি। জ্ঞান-বিজ্ঞানে উন্নত জাতিই পৃথিবীতে আজ শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। মনে রাখতে হবে, বইবিমুখ জাতি কখনো জ্ঞান-বিজ্ঞানে উন্নতি সাধন করতে পারে না। জ্ঞানভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থা ছাড়া একটি সমাজ স্থায়ী হতে পারে না। বই না পড়লে একটি দেশে জ্ঞানী-গুণীর সমাবেশ ঘটে না। আর একটি দেশে গুণী না থাকলে দেশও সঠিক পথে চলে না

আবার ভিজিট করবেন !!! ধন্যবাদ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only