বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

নসীম হিজাযী: Naseem Hijazi Books

  নসীম হেযাজী কর্তৃক রচিত ইসলামি উপন্যাস এর pdf বই ডাউনলোড করতে নিচে↓ নামের উপর ক্লিক করুন।
৫। কিং সাইমন এর রাজত্ব
৭। চুড়ান্ত লড়াই
১২। মরণ জয়ী
১৮। লৌহ মানব
২৩। হেজাজের কাফেলা

লেখক পরিচিতিঃ
 সোজানপুরে ১৯ মে ১৯১৪সনে চৌধুরী জান মুহাম্মদের পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন কালজয়ী এই ঔপন্যাসিক। তাঁর পিতা খাল ডিপার্টমেন্টে একজন সরকারি কর্মচারী ছিলেন। শৈশবই মা থেকে বঞ্চিত হয়েছিলেন। নিজ গ্রামে প্রাথমিক শিক্ষা নিলেও ১৯৩৮ সালে ইসলামিয়া কলেজ লাহোর থেকে বি.এ করেন। তখন থেকেই শুরু হয় তার লেখালেখি। প্রথম লেখা “শাদের” কথাসাহিত্য হিসাবে প্রকাশ হয়। তখন তিনি তার আসল নাম ‘মুহাম্মদ শরীফ’ নামেই লিখতেন। কিন্তু পরে তিনি তার শিক্ষকের পরামর্শে নাসিম হিজাযী নাম ধারণ করেন। আর এই নামেই হয়ে উঠেন তিনি জীবন্ত কিংবদন্তী। শুধু উপমহাদেশেই নয়, সারা বিশ্বজুড়ে ঐতিহাসিক উপন্যাসে অনেকটা অদ্বিতীয় তিনি। বহু ভাষায় তার উপন্যাসগুলো অনূদিত হয়েছে। আমাদের দেশেও তার মোটামুটি সব উপন্যাসগুলো বিভিন্ন নামে প্রকাশিত হয়েছে। আর একেকটি বইয়ের সংস্করণ পঁচিশ তিরিশের উপরে। 
তাঁর উপন্যাস লেখা তার সাংবাদিকতা দ্বারা গভীরভাবে প্রভাবিত ছিল। তিনি সত্য এবং বাস্তববাদে নিবেদিত ছিলেন। তিনি সত্যবাদী এবং বাস্তবসম্মত লেখার একটি প্ররোচনা দিয়েছেন। বরং তিনি সত্য ও বাস্তববাদী লেখার এই ঐতিহ্যকে দৃঢ় করেছেন। তিনি সর্বদা সংবাদপত্রের শ্রমিকদের কল্যাণে গুরুত্ব প্রদান করতেন। কিন্তু সবগুলিই অকার্যকর হতো যেমনটি তিনি নিজের থেকে আলাদা ও আলাদাভাবে কাগজে প্রকাশ করতে চেয়েছিলেন। সাংবাদিকতা ঐতিহ্য, যা নসিম হিজাযীকে এগিয়ে নিয়ে এসেছে, এখনও সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে আলো ছড়াচ্ছে। 
তার লেখা থেকে পাঠকের সুবিধার জন্য প্রথমে উপন্যাসের সারাংশ দেওয়া হয়েছে এবং তারপর বিভিন্ন ঐতিহাসিকদের প্রসঙ্গে উপন্যাসটিতে পাওয়া বিভিন্ন ঐতিহাসিক ঘটনাগুলি তুলে ধরা হয়েছে। নসিম হিজাযীর ‘দস্তান-ই-মুজাহিদ’ ইসলামি ইতিহাসের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ জেনারেলদের সাথে কাজ করে এবং তারা তারিক বিন জিয়াদ, কাতিবা বিন মুসলিম বাহলি এবং মুহাম্মদ বিন কাশিম। বিভিন্ন যুদ্ধ এবং যুদ্ধ এবং যুদ্ধের মোডে সৈন্যদের সংখ্যা ইতিহাসের বইগুলিতে পাওয়া প্রমাণের সাথে বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে। একইভাবে ‘মুহম্মদ বিন কাসিম’ উপন্যাস এবং মুহাম্মদ বিন কাসিমের ভয়াবহ পরিণতিতে পাওয়া ঐতিহাসিক ঘটনা ইতিহাস থেকে প্রমাণিত প্রমাণসহ প্রমাণিত হয়েছে। অতএব ঐতিহাসিক ঘটনাগুলি ‘আখরি চাঁন’ যেমন বর্তমান যুদ্ধগুলির বিবরণ, খলিফার আদালতের প্লট ও ষড়যন্ত্র এবং জালালউদ্দীন খাজাজ্জাম শাহের লজিক্যাল শেষ এবং বাগদাদের খলিফের শেষ পর্যায় সবচেয়ে খারাপ ঘটনা প্রমাণিত হয়েছে। 
যেমন স্পেনের মহিমামন্ডল রাষ্ট্র, উপনিবেশের আতিথেয়তা এবং পার্থিব এবং শব্দতুল্য আনন্দ এবং উপন্যাস ‘ইউসুফ বিন তাশফিন’-এ ইউসুফ বিন তাশফের হস্তক্ষেপকে ঐতিহাসিক প্রমাণিত করা হয়েছে, তবে ঐতিহাসিক ঘটনাগুলি অতীতের অতীতে যেমন বলা হয়েছে ‘মোয়াজ্জাম আলী’ বিশেষত আলি ওয়ার্ড খান, নওয়াব সিরাজদ্দৌলা, আহমদ শাহ আবদালী, হায়দার আলী এবং তাদের অভিযান ও কৌশলের ইতিহাস তুলে ধরেছেন ইতিহাসের পাতায়। একইভাবে টিপু সুলতানের বীরত্ব ও সাহস এবং ফরাসিদের জন্য তার নরম কোণা, নিজের পুরুষদের নিন্দা, এবং একটি কালো ভেড়া, ষড়যন্ত্র এবং টিপুর সাহসিকতা এবং বীরত্বের ভূমিকা সম্পর্কে বিশেষ রেফারেন্স নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। শেষ যুদ্ধে সুলতান এমন ঘটনা যা ইতিহাস অনুযায়ী উপন্যাসে উপস্থাপিত হয়।
একইভাবে ‘খাক অর খুন’ উপন্যাসে উপমহাদেশের পার্টিকে উপস্থাপন করে এবং ঐ সময়ে যে দাঙ্গা সংঘটিত হয়েছিল তা ইতিহাসের আলোকে প্রমাণিত হয়েছে। পাশাপাশি উপমহাদেশের বিভাজনের সময় এই ধরনের রক্তাক্ত দাঙ্গাগুলির প্রত্যক্ষদর্শী যারা ব্যক্তিদের মতামত জুড়ে দেয়া হয়েছে। উপন্যাস লেখকদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত আপত্তিগুলি এড়ানোর জন্য এই সমস্ত রেফারেন্স এবং প্রমাণগুলি তুলে ধেেছন। সাধারণ কাহিনীটি হল, উপন্যাস লেখক তার নায়কদের হিসেব করে এবং পাঠকদের সহানুভূতি পেতে ঘটনা আরো আকর্ষণীয় করার জন্য যুদ্ধে সৈন্যদের সংখ্যা অনুমান করে। আরেকটি আপত্তি সাধারণ মানুষের কাছ থেকে উত্থাপিত হয় যে উপন্যাস লেখক ভৌগোলিক ও সামাজিক দিক থেকে অজ্ঞ, অথবা তিনি এমনভাবে উপস্থাপন করেন যে এটি অবৈধ এবং অবিশ্বস্ত কিন্তু আমি এই দৃশ্যটি প্রত্যাখ্যান করার চেষ্টা করেছি এবং এটি নসীম হিজাযীর প্রসঙ্গে সত্য নয়। কারণ তিনি সত্য এবং বাস্তববাদে বিশ্বাস করেন। প্রথমত তিনি নিজেকে জড়িত জিনিসগুলির একটি অ্যাকাউন্ট নিয়ে যান এবং তারপর তিনি সেইসব জিনিসগুলি তৈরি করেন। তিনি প্রত্যেক বস্তুর উপর নিখুঁতভাবে চিন্তা করেন, তিনি ভৌগোলিক ও সামাজিক অবস্থা এবং জীবনযাপনের মান, পরিবেশ ও জীবনযাত্রার হিসাব গ্রহণ করেন এবং তারপর তিনি লিখেছেন এবং তিনি সত্যের সাথে উপন্যাস লেখেন কারণ তিনি পরম সত্য বিশ্বাস করেন। তিনি ‘ক্বাফলা-হিজাজ’ এবং ‘কায়সার-অ-কিসরা’ লিখেননি যতক্ষণ না তিনি নিজে হিজাযের যাত্রা করেছিলেন।
নাজম হিজাযী তার বয়সের শুরুতে আল্লামা শিবলী নোমানীর ‘আল ফারুক’ অধ্যয়ন করেছেন। ঐতিহাসিক ও ঐতিহাসিক তথ্যগুলির প্রতি তাঁর আগ্রহের কারণে এটিকে ক্রমশ বাড়তে থাকে। পরে তিনি সাহিত্যিক বিশ্বের সব মহান উপন্যাস পড়েন। তিনি একটি গভীর অধ্যয়ন করেছেন। এই কারণেই তিনি তাঁর পূর্বসূরিদের মত মৌলানা আব্দুল হালিম শেয়ারর, মুহাম্মদ আলী তাব্বাব, সাদিক সার্দনভি এবং আল্লামা রাশি-উল-খেরীর মতামত উপেক্ষা করেছিলেন এবং তাঁর লেখাগুলোতে তাঁর প্রযুক্তিগত ত্রæটি ও স্বল্পসংখ্যক কর্মকান্ড এড়িয়ে যাননি বরং তিনি যেমন মহান সমসাময়িক ঐতিহাসিক উপন্যাস লেখক বিশেষত রাইস আহমেদ জাফরি, রাশেদ আক্তার নাদবি এবং এম আসলামকে দূরে রেখে তিনি তাঁর স্বতঃস্ফূর্ততা এবং তাঁর ব্যক্তিগত গুণকে যথাযথভাবে বজায় রাখেন এবং উপন্যাসের কারিগরি দিকগুলোকে বিকৃত না করে সত্যিকারের অতীতের ঘটনাগুলি তুলে ধরেন। তাঁর গভীর অধ্যয়নে, বিষয়গুলির ভাল নির্বাচন এবং কলম কবরস্থানের শিল্পের উপর তাঁর দৃঢ়মুষ্টি এমন জিনিস যা পাঠকদের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করে এবং ঐতিহাসিক উপন্যাস লেখা বিশ্বজুড়ে পড়ার একটি প্রধান দল বাছাই করে। সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নৈশের হিজাব দ্বারা তরুণ উপন্যাস লেখকেরা তাদের জীবনকালে প্রভাবিত হয়েছিলেন। বেশিরভাগ তরুণ লেখক তার শৈলী দ্বারা প্রভাবিত ছিল । এটি উল্লেখযোগ্য যে এখানে একটি সুপরিচিত সাপ্তাহিক পত্রিকা আখবার-জাহান এবং আখবার-ই-খাওয়াতিন খান আসিফের ঐতিহাসিক উপন্যাস সিরিজ কিস্তিতে নিয়ে আসে। পরবর্তীতে এগুলি জনগণের মধ্যে জনপ্রিয় হওয়ার জন্য একটি উপন্যাস আকারে সংকলিত হয়েছিল। এছাড়া, ঐতিহাসিক ঘটনার ঘটনা এবং লায়স সিপাতাপুরের ঘটনাগুলি মাসিক সাসপেন্স ডাইজেস্টে প্রকাশ করা হচ্ছে এবং তারা জনসাধারণের মধ্যে এত জনপ্রিয় যে এটি একটি বইয়ের আকারে সংগৃহীত হয়। এছাড়াও, অতীতের অনেক ঐতিহাসিক উপন্যাসগুলি ভারতবর্ষে আবির্ভূত হয় এবং তা জনগণ ভীষণ পছন্দ করে। নাসিম হিজাযী দ্বিগুণ দায়িত্ব পালন করেছেন। একদিকে তিনি ঐতিহাসিক লেখকদের প্রভাবিত করেছেন এবং অন্যদিকে তিনি পাঠকদেরকে প্রভাবিত করেন।
তিনি এমন একটি উপন্যাস লেখক যিনি আমাদের গবেষণায় ঐতিহাসিক ঘটনাগুলি অক্ষত রাখে এবং এমন একটি উপন্যাস তৈরি করেন যা ইতিহাসের উপন্যাস ও উপন্যাসের মতো প্রদর্শিত হয়। ঐতিহাসিক উপন্যাস লেখালেখির ঘটনা ও উপন্যাসের এই সমন্বয় একটি মহান ক্রেডিট, যা শুধু নসিম হিজাযীকে যায়। তিনি স্বতন্ত্র এবং তাঁর পূর্বসূরি ও সমসাময়িক উভয়ই একত্রে দাঁড়িয়ে আছেন। তিনি ইতিহাসে প্রভাবশালী উপন্যাস শিল্পকে জানেন এবং খুব সাহসীভাবে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

আবার ভিজিট করবেন !!! ধন্যবাদ 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

মনে রাখবেন: এই ব্লগের কোনও সদস্যই কোনও মন্তব্য পোস্ট করতে পারে৷

Whatsapp Button works on Mobile Device only